গর্ভবতী মহিলাদের উপর চন্দ্রগ্রহণের প্রভাব

জানা ওজানা

চন্দ্রগ্রহনের সময় পৃথিবীর ছায়া চন্দ্রের উপর পতিত হয়। আবার গ্রহনের সময় সুর্যের আলো চন্দ্রের উপর পতিত হয় কিন্তু পৃথিবীর ছায়া চন্দ্রের উপর পতিত থাকে বলে চন্দ্রের উপর সূর্যের পতিত আলোর প্রতিফলিত কিরন পৃথিবীতে আসেনা ঠিকই কিন্তু সূর্যের পতিত আলোর বিকিরন পৃথিবীতে চলে আসে।

যে কারনে চন্দ্রকে আমরা লাল দেখি। আর এই সময়ে প্রচুর বিকিরন পৃথিবীতে চলে আসে। যা মানব দেহের জন্যে খারাপ। এই বিষয়টি বৈজ্ঞানিক ভাবে প্রমানিত।

তাই গ্রহনের সময় চন্দ্রের দিকে সরাসরি তাকানো উচিত নয়। সূর্যগ্রহন অপেক্ষা চন্দ্রগ্রহনে বিকিরন অনেক কম। কিন্তু বিকিরনতো হয়। একটি এক্সরে করাতে যে বিকিরণ ঘটে তার চেয়ে অনেক বেশী বিকিরন ঘটে চন্দ্রগ্রহনে।

কুরআন ও সুন্নাহ অনুযায়ী সূর্য গ্রহন ও চন্দ্র গ্রহনের কোন প্রভাব গর্ভবতী মা, বা তার গর্ভস্থ ভ্রুনের উপর পড়ে না। গর্ভবতী মা কোন কিছু কাটলে, ছিঁড়লে বাচ্চা ঠোঁট কাটা জন্মাবে, কোন কিছু ভাঙলে, বাঁকা করলে সন্তান বিকলাঙ্গ হয়ে জন্ম নেবে – এধরনের যত কথা প্রচলিত আছে তা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও মিথ্যা, যার সাথে কুরআন ও সুন্নাহর কোন সম্পর্ক নেই। চন্দ্র, সূর্য বা অন্য কোন সৃষ্ট বস্তু অদৃশ্য ভাবে কারও উপকার বা ক্ষতি করার ক্ষমতা রাখে এধরনের বিশ্বাস রাখা তাওহীদের পরিপন্থী।

যে আল্লাহ তা’য়ালা ও শেষ দিবসে বিশ্বাস রাখে তার মনে রাখা উচিত যে, আল্লাহর অসংখ্য নিদর্শনের মধ্যে চন্দ্র, সূর্যের গ্রহণও একেকটি নিদর্শন।

কেউ যদি চন্দ্র বা সূর্য গ্রহন দেখে, তার উচিত হবে রাসুল (সাঃ) এর সুন্নাহ অনুযায়ী কাজ করা ও বেশী বেশী করে সে সময় আল্লাহকে স্মরণ করা।

রাসুল (সাঃ) বলেছেন, “চন্দ্র এবং সূর্য এ দুটি আল্লাহর নিদর্শনের অন্যতম। কারও জন্ম বা মৃত্যুর কারণে এদের গ্রহন হয় না। তাই তোমরা যখন প্রথম গ্রহণ দেখতে পাও, তখন আল্লাহকে স্মরণ কর।” [বুখারী ৪৮১৮; ইফা]

অন্য বর্ণনায় রাসুল (সাঃ) বলেছেন, “চন্দ্র ও সূর্য গ্রহণ কারও জন্ম বা মৃত্যুর কারণে লাগেনা বরং এদুটো আল্লাহর নিদর্শন, যা দ্বারা আল্লাহ তাঁর বান্দাকে সতর্ক করেন। অতএব তোমরা যখন গ্রহণ লাগতে দেখ, আল্লাহর জিকিরে মশগুল হও যতক্ষণ তা আলোকিত না হয়ে যায়।” [সহীহ মুসলিম ১৯৭২; ইফা]

আমাদের উচিত যা কিছু কুরআন ও রাসুল (সাঃ) এর সহীহ হাদিসে রয়েছে সে সম্পর্কে জানা ও সে অনুযায়ী আমল করা। আল্লাহ যেন আমাদেরকে সঠিক পথ প্রদর্শন করেন এবং আমাদেরকে রাসুল (সাঃ) এর দেওয়া শিক্ষাকে দৃঢ় ভাবে আঁকড়ে থাকতে সাহায্য করেন।

সর্বশেষ সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.