বিএনপির নেতাকে কোমড়ে দড়ি বেঁধে প্রিজনভ্যানে তুললো পুলিশ

জাতীয়

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদ কয়েকটি মামলায় কারগারে রয়েছেন। সোমবার বিকেলে আড়াইহাজারের একটি মামলায় তাকে আদালতে হাজির করা হয়। আদালত তার তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করলে, তাকে নিয়ে আড়াইহাজার থানার উদ্দেশ্যে রওনা হয় পুলিশ। এসময় অধ্যাপক মামুন মাহমুদের কোমড়ে দড়ি বেঁধে গাড়িতে তোলা হয়। এ নিয়ে আদালতপাড়ায় উপস্থিত বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা তৈরি হয়।

আদালতে উপস্থিত এক বিএনপি কর্মী নাম প্রকাশ না করার শর্তে আরটিভি অনলাইনকে বলেন, অধ্যাপক মামুন মাহমুদ কোনো চোর নয়, ডাকাত নয়, সাত খুনের আসামিও নয়। তিনি একজন অধ্যাপক, একজন সজ্জন মানুষ। শুধু বিএনপির রাজনীতি করার কারণে তার ওপর এই অত্যাচার।

অধ্যাপক মামুদের কোমড়ে দড়ি বেঁধে গাড়ি তোলা প্রসঙ্গে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দাকার আরটিভি অনলাইনকে বলেন, সরকার তো চালাচ্ছেই পুলিশ। তাই তারা স্বেচ্ছাচারিতা করছে। একটা রাজনৈতিক দলের নেতার প্রতি পুলিশের এমন আচরণ খুবই নিন্দনীয়। আমি ব্যক্তিগতভাবে এসপি সাহেবের সঙ্গে দেখা করে তাকে হয়রানি না করার ব্যাপারে বলবো।

এ ব্যাপারে মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল আরটিভি অনলাইনকে বলেন, অধ্যাপক মামুন মাহমুদ ডাকাত নন। তিনি পুলিশের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসীও নন। কোমড়ে দড়ি বেঁধে একটি রাজনৈতিক দলের সাধারণ সম্পাদককে গাড়িতে উঠানো কখনোই পুলিশের সৌজন্যবোধের ভেতরে পরে না। সংবাদ উৎস- আর টিভি

আরও পড়ুন- প্রিয় ক্যাম্পাসে ফিরছেন অধ্যাপক জাফর ইকবাল
শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রিয় ক্যাম্পাসে আগামীকাল বুধবার ফিরে যাচ্ছেন লেখক শিক্ষাবিদ অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল । রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ১১দিন চিকিৎসা শেষে তার প্রিয় শাবি ক্যাম্পাসে ফিরছেন।

ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালের ব্যক্তিগত সহকারী জয়নাল আবেদীন মঙ্গলবার দুপুরে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‌ বুধবার দুপুর ১২টার দিকে নভোএয়ারের একটি ফ্লাইটে সিলেটে যাবেন অধ্যাপক জাফর ইকবাল।দুপুর দেড়টার দিকে ক্যাম্পাসে যাবেন এবং বিকেল ৪টায় হামলার স্থান মুক্তমঞ্চে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলবেন।
এদিকে, মুহম্মদ জাফর ইকবালের প্রত্যাবর্তনকে কেন্দ্র করে ‘বরণ অনুষ্ঠানের’ প্রস্তুতি নিচ্ছে শাবির আইআইসিটি পরিবার ও সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট।সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের ভারপ্রাপ্ত সমন্বয়ক রিফাত হায়দার জানান, জাফর ইকবালকে তারা ক্যাম্পাসে স্বাগত জানানোর পরিকল্পনা করছেন। তবে এখনও কোনো কর্মসূচি চূড়ান্ত হয়নি।

গত ৩ মার্চ শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তমঞ্চে এক অনুষ্ঠানে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালকে ছুরিকাঘাতে হত্যার চেষ্টা করে উগ্রবাদী এক যুবক। হামলার পর গুরুতর আহত অবস্থায় ড. জাফর ইকবালকে প্রথমে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। পরে সেখান থেকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে ঢাকায় সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) আনা হয়। এখানেই ১০ দিন ধরে চিকিৎসা চলে তার।

এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বাদী হয়ে নগরীর জালালাবাদ থানায় মামলা দায়ের করে । এ মামলায় ফয়জুলকে গ্রেপ্তার দেখায় পুলিশ। এরপর একে একে অভিযান চালিয়ে ফয়জুলের বাবা হাফিজ আতিকুল ইসলাম, মা মিনারা বেগম, ভাই এনামুল হাসান, মামা ফজলুর রহমান, শাবিপ্রবি গ্রন্থাগারের নিরাপত্তা প্রহরী খালেকুজ্জামান, বাইসাইকেল কারিগর জাহিদকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.