স্কুলছাত্রী ধর্ষণ মামলায় ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার

আওয়ামীলীগ

স্কুলছাত্রী ধর্ষণ, বেলকুচি পৌরসভা কার্যালয়ে ভাঙচুর ও নারী মেয়রকে লাঞ্ছিত, বাসে অগ্নিসংযোগ ও ভাঙচুর এবং সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে স্থানীয় এমপি আব্দুল মজিদ মল্ডকে নিয়ে কটূক্তিসহ বেশ ক’টি মামলার চার্জশিটভুক্ত পলাতক আসামি সিরাজগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের বহিস্কৃত সহ-সভাপতি রিয়াদ হোসেনকে (৩০) গ্রেফতার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

সোমবার (১২ মার্চ) দুপুরে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিআইবি)-এর সিরাজগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এস.এম. তারেক রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে রবিবার (১১ মার্চ) রাতে বেলকুচির নিজবাড়ী থেকে গ্রেফতারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে রাতেই তাকে সিরাজগঞ্জ জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

একই সঙ্গে তার ৭ দিনের রিমান্ড চেয়েছে পিবিআই’র পুলিশ পরিদর্শক ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা গোলাম কিবরিয়া। পরে ১৪ মার্চ রিমান্ড শুনানির দিন ধার্য করে আদালতের বিচারক আসামীকে জেলহাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

গ্রেফতারকৃত রিয়াদ হোসেন সিরাজগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ছিলেন। ধর্ষণের অভিযোগে তাকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়। সে বেলকুচি উপজেলার চরচালা গ্রামের বাসিন্দা।

২০১৭ সালের ১৩ অক্টোবর বেলকুচির কলাগাছি গ্রামের এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে ছাত্রলীগ নেতা রিয়াদ হোসেনের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় ছাত্রীর মামা রিয়াদ, আরমান হোসেন, আল-আমিন হোসেন, রুবেল শেখ, পিচ্চি রতনকে অভিযুক্ত করে সিরাজগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতে মামলা করেন।

পরে আদালত মামলাটির তদন্তভার পিবিআই’কে দেয়। এছাড়াও ধর্ষণের ঘটনায় ভিকটিম প্রথমে বেলকুচি থানায় অভিযোগ দিতে গেলে রিয়াদসহ অন্য আসামিদের যোগসাজশে মেয়েটিকে ভয়ভীতি দেখিয়ে মামলা না করার জন্য ওসি সাজ্জাদ হোসেন সাদা কাগজে কৌশলে স্বাক্ষর নেন বলেও মামলার এজাহারে উল্লেখ রয়েছে।

এছাড়া গত ১৪ ডিসেম্বর বেলকুচি পৌরসভা কার্যালয়ে ভাঙচুর ও নারী মেয়রকে লাঞ্ছিত করার ঘটনায় দ্রুত বিচার আইনে দায়ের করা মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামিও রিয়াদ।

সম্প্রতি যুবলীগ নেতা সাজ্জাদুল হক রেজা ও ফারুক হোসেনকে ডিবি পুলিশ গ্রেফতার করার পর বাসে অগ্নিসংযোগ ও ভাঙচুরের ঘটনায় বেলকুচি থানায় আরেকটি দ্রুত বিচার আইনে দায়ের হওয়া মামলায়ও রিয়াদ চার্জশিটভুক্ত আসামি।

এছাড়া সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে স্থানীয় এমপি আব্দুল মজিদ মণ্ডলকে নিয়ে কটূক্তি করায় তথ্য প্রযুক্তি আইনে আরেকটি মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে আলোচিত ছাত্রলীগ নেতা রিয়াদ হোসেনের বিরুদ্ধে।

ঈশ্বরদীতে রাতভর ২ স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ

পাবনার ঈশ্বরদীতে দুই স্কুলছাত্রীকে রাতভর ধর্ষণ করা হয়েছে। ধর্ষিতা দুই ছাত্রীর বাড়ী ঈশ্বরদী উপজেলার সাহাপুর ইউনিয়নের দীঘা গ্রামে। ধর্ষিতা দুই স্কুলছাত্রী আওতাপাড়া নূরজাহান বালিকা বিদ্যা নিকেতন এন্ড কলেজের সপ্তম ও অষ্টম শ্রেণীতে পড়ে।

ঈশ্বরদী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সোমবার দুপুর ১২টার দিকে ওই দুই ছাত্রী ও তাদের অভিভাবকরা অভিযোগ করেন। এ সময় ধর্ষিতা ছাত্রীদ্বয় উপস্থিত সাংবাদিকদের জানান, পার্শ্ববর্তী বাঁশেরবাদা উচ্চ বিদ্যালয়ের দুইদিনব্যাপী শতবর্ষ উৎসব শেষে বাড়ি ফেরার সময় পূর্ব পরিচিত রমজান ও রনি বেড়ানোর কথা বলে তাদের তুলে নিয়ে রাতভর একটি বাড়িতে আটকে রেখে ধর্ষণ করে।

ধর্ষিতারা আরো জানায়, রোববার শতবর্ষ উৎসবের দ্বিতীয় দিনে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান দেখার জন্য তাদের স্কুলের সকল ছাত্রী বাঁশেরবাদা উচ্চ বিদ্যালয়ে যায়।

বিকেল ৩টার দিকে বিরতির সময় এই দুই ছাত্রী রমজান ও রনির সাথে অটোতে করে বেড়াতে বের হয়। অটো বিভিন্ন রাস্তায় ঘুরে-ফিরে সন্ধ্যার দিকে গড়গড়ি গ্রামের একটি ফাঁকা বাড়িতে ওদের নিয়ে যাওয়া হয়। পরে সারারাত আটকে রেখে দুই ধর্ষক ওই ছাত্রীদের ধর্ষণ করে।

সোমবার ভোরের দিকে এই কথা কাউকে না জানানোর জন্য শাসিয়ে রমজান ও রনি ধর্ষিতাদের বাড়ি থেকে বের করে দেয়। এ সময় তারা অনেক পথ পায়ে হেঁটে সকাল আটটার দিকে বাড়ি পৌঁছায়।

পরিবারের লোকজন সারারাত এদের খোঁজ করেও না পেয়ে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। পরিবারের পক্ষ হতে সারারাত কোথায় ছিল জানতে চাইলে ধর্ষিতা ছাত্রীরা পরিবারকে এ ঘটনা জানায়।

পরে উভয় পরিবারের পক্ষ হতে এলাকার সাহাপুর ইউপি’র মেম্বার শামসুল প্রামাণিককে বিষয়টি জানানো হলে মেম্বার ধর্ষিতা ও পরিবারের লোকজনদের নিয়ে অভিযোগ দেয়ার জন্য পুলিশের ঈশ্বরদী সার্কেলের অফিসে নিয়ে যায়।

এ সময় মেম্বার শামসুল ও এলাকার লোকজন জানান, ধর্ষকদের বাড়ি গড়গড়ি গ্রামে। রমজানের বাবার নাম সিরাজুল ইসলাম মনা এবং রনির বাবার নাম মনিরুল ইসলাম। সিরাজুল ইসলাম মনা আওতাপাড়া হাটে ইজারাদারের খাজনা তোলার কাজ করে।

এলাকাবাসীরা জানান, উভয় ধর্ষিতার বাবা অত্যন্ত দরিদ্র। এদের মধ্যে একজনের বাবা মোস্তাক প্রামানিক পেশায় অটো ভ্যানচালক এবং অপরজন আবলু প্রামাণিক পেশায় দিন মজুর।

এ ব্যাপারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জহুরুল হক জানান, শুনেছি প্রেম ঘটিত কারণে বেড়াতে গিয়ে এমন ঘটনা ঘটেছে। ঘটনা জানার সাথে সাথে পুলিশী কার্যক্রম শুরু হয়েছে বলে তিনি জানান।

ব্রেকিংনিউজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.