জামায়াতের আমীরের গ্রেফতারের নিন্দা জানিয়ে মুক্তি দাবি ইরানের

জামায়াত

জামায়াত ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত আমির অধ্যাপক মু‌জি‌বুর রহমানকে গ্রেপ্তারের নিন্দা জানিয়ে তার মুক্তির দাবি জানিয়েছেন ২০ দলীয় জোটের শরিক বাংলাদেশ লেবার পার্টির একাংশের প্রধান মোস্তাফিজুর রহমান ইরান।

সোমবার সকালে মুজিবুর রহমানসহ জামায়াতের ১০ নেতাকে আটক করে রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)। মহানগরীর হেতেমখাঁ এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়।

এর প্রতিবাদ জানিয়ে লেবার পার্টির একাংশের চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান ইরান এবং ভারপ্রাপ্ত মহাস‌চিব প্রকৌশলী মো. ফ‌রিদ উদ্দিন এক যুক্ত বিবৃ‌তি‌তে ব‌লেন, সরকার ২০ দলীয় জোট‌নেত্রী বেগম খা‌লেদা জিয়া ও জামায়াত আমির মকবুল আহমেদের পর ভারপ্রাপ্ত আমিরকে গ্রেপ্তারের মধ্য দি‌য়ে প্রতিহিংসার দাবানল ছ‌ড়ি‌য়ে দি‌য়ে‌ছে। এর অংশ ‍হিসেবে জো‌টের শ‌রিক লেবার পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম‌কেও গ্রেপ্তার করেছে।

নেতৃদ্বয় সকল ষড়যন্ত্র প‌রিহার ক‌রে বিএন‌পি-জামায়াত নেতাকর্মী‌দের না‌মে ‘মিথ্যা ও হয়রানিমূলক’ হামলা-মামলা ও গণগ্রেপ্তার বন্ধ ক‌রে অবিল‌ম্বে নিঃশর্ত মু‌ক্তির দাবি জানান।

হিন্দু লীগ সহ ১৯ নতুন দলের নিবন্ধন আবেদন বাতিল করল ইসি

নিবন্ধনের জন্য নির্বাচন কমিশনে (ইসি) আবেদন করে নতুন ৭৬টি রাজনৈতিক দল। এসব দলের কাগজপত্রেই কমবেশি ত্রুটি পাওয়া গেছে। এছাড়া, প্রাথমিকভাবে দলগুলোর আবেদনের সঙ্গে থাকা দলিলাদি পরীক্ষা শেষে ১৯টি দলের আবেদন আগেই বাদ দিয়ে দিচ্ছে এবং বাকিদের সবকিছু ঠিক করার জন্য ১৫ দিন সময় দিয়ে চিঠি দিতে যাচ্ছে ইসি। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, ১৯টি দলের আবেদন বাতিল করার সুপারিশ করেছে এ সংক্রান্ত কমিটি। এটি এখন কমিশনের অনুমোদনের জন্য উপস্থাপন করা হবে।

জানা যায়, রাজনৈতিক দল নিবন্ধন বিধিমালা, ২০০৮-এর ধারা ৭(৫) অনুযায়ী কিছু রাজনৈতিক দলের ত্রুটি-বিচ্যুতি সংশোধন ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দেয়ার জন্য সময় দেয়ার সুপারিশ করা হয়েছে। বাকি ১৯টির আবেদন ওই ধারার আওতায় না পড়ায় তা বাতিলের সুপারিশ করা হয়েছে।

নতুন রাজনৈতিক দলের আবেদন যাচাই-বাছাই কমিটি কয়েক দফা বৈঠক করে রিপোর্ট চূড়ান্ত করেছে। রিপোর্টে তিনটি সুপারিশ করা হয়েছে। এর মধ্যে প্রথমটি হচ্ছে- রাজনৈতিক দল নিবন্ধন বিধিমালা, ২০০৮-এর বিধি ৭-এর উপবিধি (৫) অনুসারে ৫৬টি রাজনৈতিক দলকে অনূর্ধ্ব ১৫ দিনের মধ্যে প্রয়োজনীয় দলিলাদি সরবরাহসহ বিদ্যমান ত্রুটিসমূহ সংশোধন করা।

দ্বিতীয়টিতে- বিধি ৫ অনুযায়ী আবেদনের সঙ্গে নিবন্ধন ফি ৫ হাজার টাকা ট্রেজারি চালান দাখিল না করায় ১৪টি আবেদন নামঞ্জুর করা হয়েছে।

দলগুলো হচ্ছে- তৃণমূল ন্যাশনাল পার্টি, গণতান্ত্রিক ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ভাসানী), বাংলাদেশ ঘুষ নির্মূল পার্টি (বিজিএনপি), বাংলাদেশ সততা দল (বিএইচপি), বাংলাদেশ হিন্দুলীগ,

বাংলাদেশ জনতা ফ্রন্ট, জাতীয় পরিবার কল্যাণ পার্টি (জেপিকেপি), বাংলাদেশ ইসলামিক পার্টি (বিআইপি), বাংলাদেশ শান্তির দল, কৃষক শ্রমিক পার্টি, জনস্বার্থে বাংলাদেশ, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি (বিএনডিপি), বাংলাদেশ ডেমোক্রেটিক মুভমেন্ট-বিডিএম (প্রতীক নেই) ও ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-ভাসানী ন্যাপ (প্রতীক নেই)।

এছাড়া নির্ধারিত ফরমে আবেদন না করায় সুশীল সামাজিক আন্দোলন-এসএসএ, বাংলাদেশ ইউনাইটেড ইসলামিক পার্টি, বাংলাদেশ তৃণমূল কংগ্রেস ও মৌলিক বাংলা নামক তিনটি দলের আবেদনে ক্ষমতাপ্রাপ্ত ব্যক্তির স্বাক্ষর না থাকায় এবং ন্যাপ-ভাসানীর আবেদন অসম্পূর্ণ ও গঠনতন্ত্রের কপি জমা না দেয়ায় নিবন্ধন আবেদন নামঞ্জুর করা হয়েছে সুপারিশে।

সূত্র আরও জানায়, প্রাথমিক যাচাই-বাছাইয়ে যেসব দল নিবন্ধন উপযোগী হিসেবে চিহ্নিত করা হবে, সেগুলোর মাঠ পর্যায়ের কার্যালয় ও কমিটি রয়েছে কি না তা খতিয়ে দেখবে কমিশন।

এরপর নিবন্ধন শর্ত পূরণকারী দলগুলোর খসড়া তালিকা প্রকাশ করা হবে। ওই সব দলের ওপর দাবি-আপত্তি শেষে নিবন্ধন দেয়া হবে।

তবে প্রাথমিক বাছাইয়ে মোটামুটি কাগজপত্র পাওয়া গেছে, এমন দলের সংখ্যা খুবই সামান্য। এ সংখ্যা পাঁচটির অধিক হবে না বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে ইসির অতিরিক্ত সচিব মো. মোখলেসুর রহমান জানান, প্রাথমিকভাবে নিবন্ধন উপযোগী হিসেবে বাছাই করাদের মাঠ পর্যায়ের কার্যালয় ও কমিটির খোঁজ নেয়া হবে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতিবেদন পাওয়ার পর শর্ত পূরণকারী দলগুলোর খসড়া তালিকা প্রকাশ করা হবে। তাদের বিষয়ে দাবি-আপত্তি শেষে নিবন্ধন দেওয়া হবে।

তিনি আরো বলেন, নতুন দলকে ১৫ দিন সময় দেওয়া, বিজ্ঞাপন দিয়ে দাবি-আপত্তির সময় দেওয়া এবং মাঠের তদন্ত প্রতিবেদন প্রাপ্তি- সব মিলিয়ে এ মাসে কাজ শেষ হবে না। আগামী মাসেও যদি এ কাজ শেষ করতে পারি, তাহলে অসুবিধা হবে না আশা করি।

গত বছরের ৩০ অক্টোবর ইসি নতুন দলের নিবন্ধনের জন্য আবেদন চেয়ে গণবিজ্ঞপ্তি জারি করে। আবেদনের শেষ দিন ছিল ৩১ ডিসেম্বর। সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন বাধ্যতামূলক। সংসদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর বাইরে অন্যদের স্বতন্ত্র প্রার্থী হতে হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.